ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪ ৬:৪৯ অপরাহ্ণ || ইউএসবাংলানিউজ২৪.কম

গাজায় পানি, জ্বালানি ও ওষুধের তীব্র সংকট

১ min read

ইসরায়েলের গাজা অবরোধের কারণে উপত্যকাটিতে সুপেয় পানি, জ্বালানি ও চিকিৎসা সরঞ্জামের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বাধ্য হয়ে কুয়ার নোংরা পানি খেতে হচ্ছে গাজাবাসীকে। শনিবার জাতিসংঘের ফিলিস্তিনি শরণার্থী সংস্থা ইউএনআরডব্লিউএর কমিশনার জেনারেল ফিলিপ লাজারিনি এ তথ্য জানিয়েছেন।

ইউএনআরডব্লিউএ কমিশনার-জেনারেল ফিলিপ লাজারিনি বলেছেন, এটা জীবন-মৃত্যুর ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি একটি আবশ্যক বিষয় যে, ২০ লাখ মানুষের জন্য পানি সরবরাহের জন্য এখনই গাজায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা দরকার।

সংস্থাটি জানিয়েছে, এক সপ্তাহ ধরে গাজায় কোনও মানবিক সরবরাহের অনুমতি দেয়া হয়নি।

গাজা উপত্যকায় বিশুদ্ধ পানি ফুরিয়ে যাচ্ছে কারণ এর ওয়াটার প্ল্যান্ট এবং পাবলিক ওয়াটার নেটওয়ার্ক কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছে। ফিলিস্তিনিরা এখন কূপের নোংরা পানি ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছে এবং পানিবাহিত রোগের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে।

প্রসঙ্গত, ইসরায়েল গত বুধবার থেকে গাজায় বিদ্যুত বন্ধ করে দিয়েছে।

এদিকে, ইসরায়েল স্থল অভিযানের আগে গাজার বাসিন্দাদের অন্যত্র সরে যাওয়ার নির্দেশকে জাতিসংঘ ‘অসম্ভব’ বলে আখ্যায়িত করেছে। গত সপ্তাহ থেকে সেখানে প্রায় ১০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

লাজারিনি আরও বলেন, ‘আমাদের এখন গাজায় বিদ্যুৎ পৌঁছাতে হবে। মানুষের নিরাপদ পানীয় জলের একমাত্র উপায় হলো বিদ্যুৎ। যদি তা না হয়, মানুষ মারাত্মক পানিশূন্যতায় মারা যেতে শুরু করবে, তাদের মধ্যে ছোট শিশু, বয়স্ক এবং নারীরা বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে। পানিই এখন শেষ অবশিষ্ট জীবনরেখা। আমি মানবিক সহায়তার স্বার্থে অবরোধ এখনই তুলে নেয়ার জন্য আবেদন করছি।’

গত শনিবার ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস ইসরায়েলের উপর একটি আশ্চর্য বহুমুখী হামলা চালায়, যাতে কমপক্ষে ১,৩০০ ইসরায়েলি নিহত হয়।

ইসরায়েল তখন গাজার ছিটমহলে হাজার হাজার বোমা ফেলে অন্তত ২,২১৫ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করে। ইউএনআরডব্লিউএ আরও বলেছে, গাজায় তাদের আশ্রয়কেন্দ্র আর নিরাপদ নয়।

সংস্থাটি বলেছে, যুদ্ধের নিয়ম আছে। বেসামরিক ব্যক্তি, হাসপাতাল, স্কুল, ক্লিনিক এবং জাতিসংঘের প্রাঙ্গণ হামলার লক্ষ্যবস্তু হতে পারে না। আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া ব্যক্তিদেরসহ বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে তাদের বাধ্যবাধকতা পূরণের জন্য সংঘাতের পক্ষগুলোর সঙ্গে আলোচনার কোনও প্রচেষ্টাই বাদ দিচ্ছে না ইউএনআরডব্লিউএ।

সংস্থাটি আরও বলেছে, এই যুদ্ধের ব্যতিক্রম হওয়া উচিত নয়। বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা এবং জাতিসংঘ ভবনসহ বেসামরিক অবকাঠামো এই সংঘাতের বাইরে প্রযোজ্য।

আল-জাজিরা জানিয়েছে, বিভিন্ন সংস্থা এবং দেশ কয়েক হাজার শিশুসহ ২০ লাখ মানুষের কাছে মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছে, যাদের জরুরিভাবে এটি প্রয়োজন। সূত্র: আলজাজিরা।

Comments

comments

More Stories

১ min read
১ min read
১ min read

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!