JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
ট্রাম্পের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান এফবিআই প্রধানের

ট্রাম্পের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান এফবিআই প্রধানের

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বিরুদ্ধে ফোনে আড়িপাতার যে অভিযোগ তুলেছেন তা প্রত্যাখ্যান করেছেন এফবিআই প্রধান জেমস কোমি। বিচার বিভাগের কাছে ট্রাম্পের আড়িপাতার অভিযোগটি মিথ্যা এবং অবশ্যই সংশোধন করা দরকার বলে আর্জি জানিয়েছেন তিনি। যদিও বিচার বিভাগ তাত্ক্ষণিকভাবে তার অনুরোধে সাড়া দেয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বরাতে এসব কথা জানানো হয়েছে। দেশটির গণমাধ্যম জানিয়েছে, ট্রাম্পের অভিযোগের পক্ষে কোনো প্রমাণ নেই বলে বিশ্বাস করেন কোমি।
প্রসঙ্গত, শনিবার এক টুইটে ফোনে আড়িপাতার অভিযোগ তোলেন ট্রাম্প। টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘এইমাত্র জানতে পারলাম নির্বাচনে জয়লাভের মাত্র কিছুদিন আগে ওবামা ট্রাম্প টাওয়ারে আমার টেলিফোনে আড়ি পেতেছিলেন। কিছুই পাননি। কতটা নিচে নেমে প্রেসিডেন্ট ওবামা খুবই শুদ্ধ একটি নির্বাচন প্রক্রিয়ার মধ্যে আমার ফোনে আড়িপাতার মতো কাজ করলেন। এটা ওয়াটারগেটে মতো।’
ট্রাম্পের অভিযোগের পর এটি তদন্ত করে দেখতে রোববার কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। ওইদিনই নিউইয়র্ক টাইমসের একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণা চলাকালে তদন্তকারী কর্তৃপক্ষ হিসেবে ওবামা প্রশাসন ক্ষমতার অপব্যবহার করেছিল কিনা তা তদন্ত করে দেখতে রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ কংগ্রেসের প্রতি আর্জি জানিয়েছে হোয়াইট হাউস।
ওই নির্বাচনকে রাশিয়া প্রভাবিত করেছিল কিনা তা নিয়ে কংগ্রেসের চলমান তদন্তের অংশ হিসেবে অভিযোগটিকে অন্তর্ভুক্ত করার আর্জি জানানো হয়েছে। ‘ওই সময়ে একজন প্রেসিডেন্টে প্রার্থী হিসেবে ট্রাম্পের বা তার প্রচারণা শিবিরের বিরুদ্ধে আড়িপাতার মতো কোনো তত্পরতা চালানো হয়নি,’ এনবিসি টেলিভিশনের ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে বলেছেন যু্ক্তরাষ্ট্রের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক প্রধান জেমস ক্লাপার। জানুয়ারিতে প্রেসিডেন্ট ওবামার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ক্লাপার জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানের পদ ত্যাগ করেছিলেন।
ওবামার এক মুখপাত্র অভিযোগটি অস্বীকার করে বলেছেন, হোয়াইট হাউসের কোনো কর্মকর্তা স্বাধীন বিচার বিভাগের কোনো তদন্তে হস্তক্ষেপ করতে পারে না।

Comments

comments

error: Content is protected !!