এপ্রিল ১৭, ২০২৪ ১১:৫২ অপরাহ্ণ || ইউএসবাংলানিউজ২৪.কম

তিঁনি আমাদের গোলাম সারওয়ার

১ min read

সোমবার বাংলাদেশ সময় ৯টা ২৫ মিনিটে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান একুশে পদকপ্রাপ্ত কিংবদন্তি সাংবাদিক, সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ার। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

মঙ্গলবার তার নিথর দেহ দেশে এসে পৌঁছেছে।স্বজন ও সহকর্মীরা মঙ্গলবার রাত ১০টা ৫০ মিনিটে দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তার মরদেহ গ্রহণ করেন।

বুধবার তাকে নেয়া হবে তার জন্মস্থান সন্ধ্যা নদীতীরের গ্রাম বানারীপাড়ায়। শোকার্ত সহকর্মী, সহযোদ্ধা, সুহৃদ ও সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বৃহস্পতিবার তিনি শেষ শয্যা নেবেন মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে।

৩ আগস্ট মধ্যরাতে সমকাল সম্পাদককে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সিঙ্গাপুরে নেয়া হয়। এর আগে গত ২৯ জুলাই মধ্যরাতে দেশবরেণ্য সাংবাদিক, সম্পাদক পরিষদের সভাপতি গোলাম সারওয়ার রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি হন।

বরেণ্য সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার ১৯৪৩ সালের ১লা এপ্রিল বরিশাল জেলার বানারীপাড়া উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। তার সাংবাদিকতার জীবন শুরু হয় ১৯৬৩ সালে দৈনিক পয়গম দিয়ে। এরপর তিনি দৈনিক সংবাদ, দৈনিক ইত্তেফাক, দৈনিক যুগান্তর ও দৈনিক সমকাল পত্রিকায় সাংবাদিকতা করেন। মুক্তিযুদ্ধের পর বানারীপাড়া ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশনে কিছুদিন প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োজিত ছিলেন।

১৯৭৩ সালে দৈনিক ইত্তেফাকের সিনিয়র সহ-সম্পাদক হিসেবে যোগদান করেন। ইত্তেফাকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত প্রধান সহসম্পাদক, যুগ্ম বার্তা সম্পাদক ও বার্তা সম্পাদক পদে কর্মরত ছিলেন। ইত্তেফাকে দীর্ঘ দুই যুগ কর্মরত থাকার পর ১৯৯৯ সালে দৈনিক যুগান্তরের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন দৈনিক সমকাল। আমৃত্যু তিনি দৈনিক সমকালের সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। তিনি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন।

২০১৪ সালে বাংলাদেশ সরকার দেশের সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য তাকে দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদকে ভূষিত করে। এছাড়া তিনি ২০১৬ সালে কালচারাল জার্নালিস্টস ফোরাম অব বাংলাদেশ (সিজেএফবি) আজীবন সম্মাননা ও ২০১৭ সালে আতাউস সামাদ স্মারক ট্রাস্ট আজীবন সম্মাননা অর্জন করেন। সাংবাদিকতা ছাড়াও তিনি সেন্সর বোর্ডের আপিল বিভাগের সদস্য এবং সম্পাদকদের সংগঠন সম্পাদক পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি একাধিকবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৫ সালের আগস্ট মাসে তিনি বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন।

Comments

comments

More Stories

১ min read
১ min read
১ min read
error: Content is protected !!