ডিসেম্বর ৬, ২০২২ ৪:০২ পূর্বাহ্ণ || ইউএসবাংলানিউজ২৪.কম

ইউএস বাংলানিউজ, নিউইয়র্ক

অগ্রসর পাঠকের বাংলা অনলাইন

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা ছাড়া কোনো জাতি এগোতে পারে না

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা ছাড়া কোনো জাতি এগোতে পারে না। রোববার বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমাদের ছেলেমেয়েরা অনেক মেধাবী। তবে পড়াশোনার পাশাপাশি স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে খেলাধুলাও করতে হবে। শিক্ষার্থীরা যাতে খেলাধুলা করতে পারে তার জন্য আমরা ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে ১৯৯৬ সালে একটি মাত্র মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ছিল। আমরা এখন প্রতিটি জেলায় ক্রমান্বয়ে একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় করে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। আমরা কৃষির ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি। আমাদের ঘরের ছেলেরা যাতে ঘরে খেয়ে পড়াশোনা করতে পারে তার ব্যবস্থা করছি।

তিনি বলেন, আমাদের ছেলেমেয়েরা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ছেলেমেয়েদের থেকে মেধাবী। তাদের মেধা বিকাশের চর্চা ও বিকাশের সুযোগ সৃষ্টি করে দিতে হবে। আমরা এর জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

এ সময় গবেষণা বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষাকে যুগোপোযোগী করতে হবে। আমাদের ছেলেমেয়েরা পৃথিবীর অন্য অনেক দেশের ছেলেমেয়েদের চেয়ে মেধাবী। শুধু তাদের মেধার বিকাশের সুযোগ করে দিতে হবে।

ফলাফল ও অংশগ্রহণে ভালো করায় মেয়েদের প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে ছেলেদের পড়াশোনায় আরও মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

অভিভাবকদের বলেন, লেখাপড়ার সাথে খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক চর্চা করতে হবে। সারাক্ষণ শুধু পড় পড় করলে কারো পড়তে ভালো লাগে না। পড়াশোনার পরিবেশ তৈরি করতে হবে। সন্তানকে পড়াশোনার প্রতি আগ্রহী করে তুলতে হবে।

শিক্ষার্থীদের আগামী দিনে জাতির কর্ণধার হিসেবে তৈরি করার পরামর্শ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে যারা শিক্ষার্থী তারাই আগামী দিনের জাতির কর্ণধার। এই শিক্ষার্থীরাই সোনার ছেলেমেয়ে। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে বিশ্ব সভায় নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত দেশ হবে। এই অর্জনটা তোমাদেরকেই করে দিতে হবে।

শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ ও সফলতার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

উচ্চ শিক্ষায় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদগুলোতে সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া শিক্ষার্থীদের ‘প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক’ দেয়া হয়।

মোট ২৬৫ জন শিক্ষার্থীকে স্বর্ণপদক দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণ পদক শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেন।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, শিক্ষা সচিব সোহরাব হোসাইন।

আরও পড়ুন

error: Content is protected !!