ডিসেম্বর ১, ২০২২ ১১:৫২ অপরাহ্ণ || ইউএসবাংলানিউজ২৪.কম

ইউএস বাংলানিউজ, নিউইয়র্ক

অগ্রসর পাঠকের বাংলা অনলাইন

ভারতের আচরণ উদ্ধত ও নেতিবাচক: ইমরান

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক বাতিল করায় তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এক টুইট বার্তায় ইমরান এ বিষয়ে ইমরান এ বিষয়ে তার হতাশা ব্যক্ত করেছেন।

টুইটারে পাক প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, দ্বিপাক্ষিক আলোচনা বাতিল হওয়ায় তিনি আশাহত। ভারতের আচরণকে তিনি ‘উদ্ধত ও নেতিবাচক’ বলে উল্লেখ করেছেন। তিনি আরও লিখেছেন যে, তিনি পুরো জীবনে উঁচু পদে বসে থাকা অনেক নিম্নমেধার লোক দেখেছেন, বৃহত্তর চিত্রটি উপলব্ধি করার মতো দূরদর্শিতা যাদের নেই।

পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কারও নাম উল্লেখ করেননি ঠিকই। কিন্তু তার ইঙ্গিত যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দিকেই, সে কথা সরাসরি না বললেও বোঝা যায়।

ভারতের তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে শান্তির লক্ষ্যে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার ক্ষেত্রে প্রধান এবং প্রাথমিক শর্ত যে পারস্পরিক শ্রদ্ধা, তা ইমরান খানের সম্ভবত জানা নেই। আর যদি জানা থাকে তা হলে বলতে হবে পাক প্রধানমন্ত্রী আসলে শান্তি চাইছেন না। পাক প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যকে কুরুচিকর বলে উল্লেখ করেছে ভারত।

ইমরান খানের এমন মন্তব্যের পর ভারতের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে এমন মন্তব্য করার মতো স্পর্ধা এবং দুঃসাহস তার হলো কী করে? প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ইমরানের এমন মন্তব্যে বিস্মিত। বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে মন্তব্য করছেন তিনি। সে কথা কি ভুলে গিয়েছিলেন ইমরান খান? তিনি মোদির মেধার বিচার করলেন কিসের ভিত্তিতে?

কে উচ্চ মেধার, কে নিম্ন মেধার, ইমরান খান তা বিচার করেন কোন মাপকাঠিতে? ভারতের মতো একটি সুবিশাল দেশের বিপুল সংখ্যক নাগরিক যাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেছে নিয়েছেন। সেই ব্যক্তিকে নিম্নমেধাসম্পন্ন আখ্যা দিয়ে ইমরান খান আসলে পুরো ভারতেরই অমর্যাদা করেছেন।

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে শান্তিপ্রক্রিয়া এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা অবশ্যই মহৎ কাজ। দু’দেশের মানুষই শান্তি চান। পারস্পরিক বিদ্বেষ বা ঘৃণা কেউ পুষে রাখতে চান না বলেই খেলার মাঠে ভারতীয় ক্রিকেটারকে পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানের জুতোর ফিতে বেঁধে দিতে দেখা যায়। বৈরিতার শেষ দেখতে চান বলেই ক্রিকেট স্টেডিয়ামের দর্শকাসনে পাকিস্তানের সমর্থককে ভারতের জাতীয় সঙ্গীত গাইতে দেখা যায়।

যে কোনও কূটনৈতিক পদক্ষেপই অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয়। বুদ্ধিমত্তা, সংবেদনশীলতা, ভারসাম্যের বোধ ইত্যাদির সমন্বয়ে পদক্ষেপ নিতে হয়। ইতিবাচক ফলের লক্ষ্যে প্রতিটি পদক্ষেপকে সৌজন্যের মোড়কে পেশ করতে হয়। পরিণাম সব সময়ে আশানুরূপ হয় না। কিন্তু তার জন্য হতাশাও ব্যক্ত করতে হয় অত্যন্ত সংযত শব্দে। 

ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্ক তথা কূটনীতির রাস্তাকে পাক প্রধানমন্ত্রীর লাগাম ছাড়া প্রতিক্রিয়া কোন পথে নিয়ে যায় তা-ই এখন পর্যবেক্ষণের বিষয় বলে ধারণা করছে বিভিন্ন মহল।

আরও পড়ুন

error: Content is protected !!