ডিসেম্বর ৭, ২০২২ ৩:৫৫ পূর্বাহ্ণ || ইউএসবাংলানিউজ২৪.কম

ইউএস বাংলানিউজ, নিউইয়র্ক

অগ্রসর পাঠকের বাংলা অনলাইন

অবিস্মরণীয় জয় পেলেন মাহাথির মোহাম্মদ

দীর্ঘ ৬০ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা বারিসান ন্যাশনাল জোটকে পরাজিত করে মালয়েশিয়ার সাধারণ নির্বাচনে অবিস্মরণীয় জয় পেয়েছেন মাহাথির মোহাম্মদ।

দক্ষিণ এশিয়ার রাজনীতিতে মাহাথির উজ্জ্বল এক নাম। তার হাত ধরেই আধুনিক মালয়েশিয়ার গোড়াপত্তন হয়। কিন্তু ৯২ বছর বয়সে রাজনীতিতে নেমে ৬০ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা একটি জোটকে পরাজিত করা মোটেও সহজ ছিল না।

এএফপি, রয়টার্স, বিবিসিসহ সব আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ২২২ আসনের মধ্যে মাহাথিরের জোট ১২১টি আসনে জয় পেয়েছে। আর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ক্ষমতাসীন বারিসান ন্যাশিওনাল (বিএন) জোট এ পর্যন্ত ৭৯ টিতে জয় পেয়েছে। সরকার গঠনের জন্য ১১২ টি আসনে জয় পাওয়ার দরকার ছিল। এতে মালয়েশিয়ার ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোনো বিরোধী দল সরকার গঠন করতে যাচ্ছে।

নানা কারণেই অবিস্মরণীয় মাহাথিরের এ জয়। যে বারিসান ন্যাশনালকে হারিয়ে তিনি এ নির্বাচনে জয়ী হলেন, এক সময় এই দলের হয়েই প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে ২২ বছর ক্ষমতায় ছিলেন তিনি। কিন্তু নিজের পুরানো দলের বিপক্ষে দুর্নীতির অভিযোগ করে মাহাথির বলেন, ‘যারা দুর্নীতি করে, তাদের সাথে থাকা লজ্জার।’

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে বরাবরই দুর্নীতির অভিযোগ করে আসছেন মাহাথির। নাজিবও এক সময়ে মাহাথিরের রাজনৈতিক শিষ্য ছিলেন। ৯২ বছর বয়সে পুনরায় রাজনীতিতে এসে নিজের পুরানো জোটের বিপক্ষেই জয়ী হলেন তিনি।

বেসরকারিভাবে জয় নিশ্চিত হওয়ার পর সংবাদমাধ্যমকে মাহাথির বলেন, ‘আমরা জিতে গেছি। তারা (বিএন জোট) সরকার গঠন করতে পারবে না বলেই মনে হচ্ছে।’

মালয়েশিয়ার ১৪তম এ সাধারণ নির্বাচনকে গড়পড়তা হিসেবেই ধরে নিয়েছিলেন সবাই। নির্বাচনে নাজিব রাজাকের বিজয়ও নিশ্চিত দেখতে পাচ্ছিলেন সবাই। কিন্তু মাহাথির নির্বাচনে নামার ঘোষণা দেওয়ার পরই পাল্টে যেতে থাকে ভোটের হিসাব। নির্বাচনী মাঠে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। তারপরও ‘বুড়ো’ মাহাথিরকে নিয়ে অনেকেরই সন্দেহ ছিল। কিন্তু মাহাথির তাদের ভুল প্রমাণ করেছেন। নির্বাচনী প্রচারের সময় মাহাথির বারবার বলেছেন, ‘মালয়েশিয়ানরা পরিবর্তনে ভয় পায়।’

মাহাথির বলেছেন, তিনি কোনো প্রতিশোধ নিতে চান না, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে চান। বৃহস্পতিবারই প্রেসিডেন্ট হিসেবে মাহাথির শপথ নিতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন

error: Content is protected !!