আগস্ট ৫, ২০২১ ১২:৫৪ অপরাহ্ণ || ইউএসবাংলানিউজ২৪.কম

ইউএস বাংলানিউজ করপোরেশন, নিউইয়র্ক

অগ্রসর পাঠকের বাংলা অনলাইন

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ওয়াশিংটনে বিক্ষোভ চলছে

ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার পরদিনই দেশটির একাধিক শহরে তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছেন লাখ লাখ মানুষ। নারীদের বিষয়ে ট্রাম্পের বক্তব্যের প্রতিবাদে প্রথমে ওয়াশিংটনে ওই বিক্ষোভ মিছিল হওয়ার কথা থাকলেও, পরে দেশটির আরও অনেক শহরে তা ছড়িয়ে পড়ে। মেক্সিকো সিটি, প্যারিস, বার্লিন, লন্ডন আর সিডনিতেও বিক্ষোভ হয়েছে।
বিবিসির খবরে বলা হয়, প্রধানত নারী সংগঠনগুলোর আয়োজনে ওয়াশিংটনে ওই বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হলেও, তাতে অনেক পুরুষও অংশ নেন।
নারীদের ব্যাপারে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথিত পুরুষতান্ত্রিক আচরণের প্রতিবাদ জানাতে এ বিক্ষোভ ডাকা হয়েছে। নারী অধিকার কর্মীদের আশংকা, ডোনাল্ড ট্রাম্পের জমানায় তাদের অধিকার ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। সারাবিশ্ব জুড়ে অন্তত ৬০০ বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।
সবচেয়ে বড় সমাবেশ হয়েছে ওয়াশিংটনে। সেখানে পাচঁ লাখের বেশি মানুষ অংশ নেয়। পরিকল্পনা ছিলো যে, তারা হোয়াইট হাউজের সামনে মিছিল নিয়ে যাবেন। কিন্তু মিছিলের পথ জুড়েই লাখ লাখ বিক্ষোভকারী অবস্থান নেয়ায় তা কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়ে।
সমাবেশে মার্কিন সংগীতশিল্পী ম্যাডোনা বলেন, এই দিন আমাদের জীবন শুরু করার দিন। বিপ্লব এখান থেকেই শুরু হচ্ছে। এটা আমাদের স্বাধীনতা, আমাদের পরিচয়, আমাদের সম অধিকারের লড়াই। এই অন্ধকারের বিরুদ্ধে চলুন সবাই একসাথে লড়াই করে জানিয়ে দেই যে আমরা ভীত নই, আমরা একা নই এবং আমরা পিছনে ফিরবো না। এরপর তিনি নিজেকে তুলে ধরার বক্তব্য সম্বলিত একটি গানও গেয়ে শোনান।
ডোনাল্ড ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে অনেকেই শ্লোগান দেন, তুমি আমার প্রেসিডেন্ট নও। বিভিন্ন প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল ঘৃণা নয় ভালোবাসা, ‌‘দেয়াল নয়, সেতু’ ইত্যাদি।
বিশ্লেষকরা বলছেন, এই সমাবেশ এটাই প্রমাণ করছে যে, যুক্তরাষ্ট্রের সমাজে গভীর বিভক্তি আর ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ কর্মকাণ্ড নিয়ে ভীতি তৈরি হয়েছে। ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম দিনে অস্ট্রেলিয়া, নেদারল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড এবং জাপানেও তার বিরোধীরা বিক্ষোভ করেছেন।
এদিকে ট্রাম্পের অভিষেক অনুষ্ঠান নিয়ে মার্কিন গণমাধ্যমগুলো মিথ্যাচার করছে বলে অভিযোগ তুলেছেন হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র শেন স্পাইসার। তিনি বলেছেন, অভিষেক অনুষ্ঠানে সর্ব্বোচ্চ মানুষের উপস্থিতি থাকলেও, সেটি বিকৃতভাবে উপস্থাপন করছে গণমাধ্যম এবং এজন্য তাদের জবাবদিহি করতে বাধ্য করবে হোয়াইট হাউজ। এর আগে একই ধরণের অভিযোগ তোলেন ট্রাম্পও।

আরও পড়ুন

error: Content is protected !!