এপ্রিল ১৩, ২০২৪ ২:৩৫ পূর্বাহ্ণ || ইউএসবাংলানিউজ২৪.কম

২ শতাধিক কুয়েত প্রবাসী বাংলাদেশির স্বেচ্ছায় রক্তদান

১ min read

কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাস এবং জাতিসংঘ মানব বসতি কর্মসূচির (ইউএন-হ্যাবিট্যাট) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত রক্তদান কর্মসূচিতে ২ শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি স্বেচ্ছায় রক্তদান করেছেন। শনিবার (২৬ আগস্ট) দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কুয়েতের জাবরিয়া সেন্ট্রাল ব্লাড ব্যাংকে স্বেচ্ছায় রক্তদান কার্যক্রম চলে।

বাংলাদেশি প্রবাসীদের স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি পরিদর্শন করে ইন্দোনেশিয়া, তুরস্ক, আফগানিস্তান, ভারত, পাকিস্তান, ভুটান, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া এবং নেপালের রাষ্ট্রদূত, শ্রীলংকান দূতাবাসের প্রতিনিধি, ইউএনএইচ জিসিসি আঞ্চলিক অফিসের মিশন প্রধান, কুয়েতে কূটনৈতিক মিশনের প্রতিনিধি, দূতাবাসের কর্মকর্তারা, ইউএনএইচ জিসিসি আঞ্চলিক অফিসের কর্মকর্তারা, সদস্যরা।

এসময় অনুষ্ঠানে কুয়েতের বাংলাদেশি কমিউনিটি এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

রক্তদান কর্মসূচি উদ্বোধন করেন মেজর জেনারেল মো. আশিকুজ্জামান, কুয়েতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং আমিরা এইচ আল-হাসান (পিএইচডি), হেড অব মিশন, ইউএনএইচ জিসিসি আঞ্চলিক অফিস।

স্বাগত বক্তব্যে কুয়েতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ সালের সকল শহীদদের। ১৫ আগস্টকে ‘জাতীয় শোক দিবস’ হিসেবে পালন করা হয় এবং পুরো আগস্ট মাসটিকে ‘শোকের মাস’ হিসেবে পালন করা হয়। অন্যান্য অনেক ইভেন্টের মধ্যে, রক্তদান ক্যাম্পেইন আমাদের জাতির পিতাকে দেশে এবং বিদেশে শ্রদ্ধা জানানোর অন্যতম প্রধান উদ্যোগ।

রাষ্ট্রদূত যৌথভাবে রক্তদান অভিযান পরিচালনায় সহায়তার জন্য জাতিসংঘ-হ্যাবিট্যাটের সম্মানিত অফিসকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বাংলাদেশ কমিউনিটির রক্তদাতাদের অনুপ্রাণিত করার জন্য সকল রাষ্ট্রদূত ও তাদের প্রতিনিধিদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রদূত উল্লেখ করেন যে, এই আয়োজন কুয়েতের শহরের এবং বসবাসকারীদের স্বাস্থ্য উন্নত করবে। তিনি কুয়েতে অবস্থানরত সকল বাংলাদেশি নাগরিককে রাষ্ট্রীয় নিয়মকানুন মেনে চলার জন্য অনুরোধ করেন।

ইউএনএইচ জিসিসি আঞ্চলিক অফিসের হেড অফ মিশন আমিরা এইচ. আল-হাসান বলেন, ইউএন-হ্যাবিট্যাট, শহরগুলোর ওপর সাধারণ পরিষদ কর্তৃক বাধ্যতামূলক প্রোগ্রাম, একটি যুগান্তকারী রক্তদান প্রচারাভিযান ঘোষণা করতে পেরে গর্বিত। স্বাস্থ্যকর এবং স্থিতিস্থাপক শহরগুলোর ধারণা অর্জনের জন্য তার চলমান প্রচেষ্টার অংশ। এই রক্তদান কর্মসূচি সংহতি, সহানুভূতি এবং যত্নের মূল্যবোধকে আলিঙ্গন করার একটি শক্তিশালী প্রতীক। এই যৌথ সহযোগিতা স্বাস্থ্যকর এবং শহরগুলো সুন্দরভাবে গড়ে তোলার জন্য আমাদের যৌথ মিশনের একটি অপরিহার্য পদক্ষেপের প্রতিনিধিত্ব করে যা তাদের সকল নাগরিকদের চাহিদা এবং আকাঙ্ক্ষা পূরণ করে।

Comments

comments

More Stories

১ min read
১ min read
১ min read

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!